Home / কোম্পানি সংবাদ / একনজরে ১২ কোম্পানির ইপিএস দেখে নিন

একনজরে ১২ কোম্পানির ইপিএস দেখে নিন

ডেইলি শেয়ারবাজার রিপোর্ট: প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ১২ কোম্পানি।

 

আজ মঙ্গলবার (২৮ জুলাই) অনুষ্ঠিত কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদের সভায় এই প্রতিবেদন পর্যালোচনা ও অনুমোদনের পর তা প্রকাশ করা হয়।

কোম্পানিগুলো হচ্ছে-

রূপালী ব্যাংক লিমিটেড: চলতি হিসাববছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকের (এপ্রিল’২০-জুন’২০) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন সমন্বিতভাবে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি আয় (Consolidated EPS) হয়েছে ২২ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে সমন্বিত ইপিএস হয়েছিল ২৩ পয়সা।

চলতি হিসাববছরের প্রথম দুই প্রান্তিক তথা ৬ মাসে কোম্পানিটির সমন্বিত ইপিএস হয়েছে ৩৭ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ২৫ পয়সা। দুই প্রান্তিক মিলিয়ে সমন্বিতভাবে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি ক্যাশ ফ্লো ছিল ৭৪ টাকা ৫৪ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ক্যাশ ফ্লো ছিল মাইনাস ৮৯ টাকা ৩৩ পয়সা।

গত ৩০ জুন, ২০২০ তারিখে সমন্বিতভাবে শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয় ৩৯ টাকা ৬৪ পয়সা। আর এককভাবে এনএভিপিএস হয়েছে ৩৯ টাকা ২১ পয়সা।

ডাচ-বাংলা ব্যাংক লিমিটেড: চলতি হিসাববছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকের (এপ্রিল’২০-জুন’২০) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদনে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি আয় বা ইপিএস হয়েছে ২ টাকা ৮২ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস হয়েছিল মাইনাস ২ টাকা ৮৮ পয়সা।

চলতি হিসাববছরের প্রথম দুই প্রান্তিক তথা ৬ মাসে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ৪ টাকা ৩৩ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ৩ টাকা ৮৩ পয়সা।

দুই প্রান্তিক মিলিয়ে সমন্বিতভাবে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি ক্যাশ ফ্লো ছিল ৩৬ টাকা ৯১ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ক্যাশ ফ্লো ছিল ৩ টাকা ৮৩ পয়সা।

গত ৩০ জুন, ২০২০ তারিখে সমন্বিতভাবে শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয় ৫৯ টাকা ১৭ পয়সা।

ওয়াইম্যাক্স ইলেকট্রোডস লিমিটেড: ৩১ মার্চ, ২০২০ তারিখে সমাপ্ত তৃতীয় প্রান্তিকের (জানুয়ারি’২০-মার্চ’২০) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদনে কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ১৭ পয়সা। গত বছরের একই সময়ে আয় হয়েছিল ৩৬ পয়সা।

অন্যদিকে প্রথম তিন প্রান্তিকে তথা ৯ মাসে (জুলাই’১৯-মার্চ’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (EPS) হয়েছে ১ টাকা ৯ পয়সা। গত বছরের একই সময়ে তা ছিল ১ টাকা ১৪ পয়সা। তিন প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নগদ অর্থের প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) ছিল ১ টাকা ৩৮ পয়সা। আগের বছরের একই সময়ে তা ছিল ৪২ পয়সা।

গত ৩১ মার্চ, ২০২০ তারিখে শেয়ার প্রতি সমন্বিত প্রকৃত সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ১৪ টাকা ৫৪ পয়সা।

প্রিমিয়ার ব্যাংক লিমিটেড: চলতি হিসাববছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকের (এপ্রিল’২০-জুন’২০) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন সমন্বিতভাবে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি আয় (Consolidated EPS) হয়েছে ৪৩ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে সমন্বিত ইপিএস হয়েছিল ৮৪ পয়সা।

চলতি হিসাববছরের প্রথম দুই প্রান্তিক তথা ৬ মাসে কোম্পানিটির সমন্বিত ইপিএস হয়েছে ১ টাকা ১ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ১ টাকা ৩৪ পয়সা।দ্বিতীয় প্রান্তিকে এককভাবে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি আয় (Solo EPS) হয়েছে ৫০ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে সলো ইপিএস হয়েছিল ৮৩ পয়সা।

চলতি হিসাববছরের প্রথম দুই প্রান্তিক তথা ৬ মাসে কোম্পানিটির সলো ইপিএস হয়েছে ১ টাকা ১২ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ১ টাকা ৩০ পয়সা। দুই প্রান্তিক মিলিয়ে সমন্বিতভাবে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি ক্যাশ ফ্লো ছিল ৫৮ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ক্যাশ ফ্লো ছিল ১ টাকা ২৪ পয়সা।

গত ৩০ জুন, ২০২০ তারিখে সমন্বিতভাবে শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয় ২১ টাকা ৩৮ পয়সা, আর এককভাবে সম্পদ মূল্য ছিল ২১ টাকা ৩৩ পয়সা। ।

স্ট্যান্ডার্ড ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড: চলতি হিসাববছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকের (এপ্রিল’২০-জুন’২০) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয়  হয়েছে ৫৫ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস হয়েছিল ৪৮ পয়সা। দুই প্রান্তিক মিলিয়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি ক্যাশ ফ্লো ছিল ৬৪ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ক্যাশ ফ্লো ছিল ১ পয়সা।

গত ৩১ মার্চ, ২০২০ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয় ১৮ টাকা ৫৭ পয়সা।

ফনিক্স ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড: গত (জানুয়ারী-জুন, ২০২০) সময়ের অর্ধ বার্ষিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। কোম্পানি সূত্র মতে, (জানুয়ারী-জুন, ২০২০) সময়ে অনিরীক্ষিত প্রতিবেদন অনুযায়ী ৬ মাসে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৮৩ পয়সা।

আগের বছর একই প্রান্তিকে ইপিএস ছিল ১ টাকা ৯ পয়সা। ৩০ জুন,২০২০ পর্যন্ত কোম্পানির শেয়ার প্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ৩৬ টাকা ৪ পয়সা।

তাকাফুল ইসলামী ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড: গত (জানুয়ারী-জুন, ২০২০) সময়ের অর্ধ বার্ষিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৬৬ পয়সা। আগের বছর একই প্রান্তিকে ইপিএস ছিল ৫৪ পয়সা। ৩০ জুন,২০২০ শেষে কোম্পানির শেয়ার প্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ১৭ টাকা ৮৯ পয়সা।

ব্যাংক এশিয়া লিমিটেড:  চলতি হিসাববছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকের (এপ্রিল’২০-জুন’২০) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন সমন্বিতভাবে ব্যাংকটির শেয়ারপ্রতি আয় (কনসোলিডেটেড ইপিএস) হয়েছে ২১ পয়সা।

আগের বছর একই সময়ে সমন্বিত ইপিএস হয়েছিল ৪৭ পয়সা। (জানুয়ারি’২০-জুন’২০)  ৬ মাসে কোম্পানিটির সমন্বিত ইপিএস হয়েছে ১ টাকা ৩৭ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ১ টকা ৬ পয়সা।

অন্যদিকে দ্বিতীয় প্রান্তিকে এককভাবে ব্যাংকটির শেয়ারপ্রতি আয় (সলো ইপিএস) হয়েছে ২০ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় হয়েছিল ৪৭ পয়সা। (জানুয়ারি’২০-জুন’২০) ৬ মাসে ব্যাংকটির ইপিএস হয়েছে ১ টকা ৩৭ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ১ টকা ৮ পয়সা। দুই প্রান্তিক মিলিয়ে সমন্বিতভাবে ব্যাংকটির শেয়ারপ্রতি ক্যাশ ফ্লো ৯ টাকা ২৩ পয়সা এবং সমন্বিতভাবে ব্যাংকটির শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) ২২ টাকা ৫৭ পয়সা।

সেন্ট্রাল ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড: গত (জানুয়ারী-জুন, ২০২০) সময়ের অর্ধ বার্ষিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৯৫ পয়সা। আগের বছর একই প্রান্তিকে ইপিএস ছিল ১ টাকা ৩ পয়সা। ৩০ জুন,২০২০ পর্যন্ত কোম্পানির শেয়ার প্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ২৫ টাকা ৬৩ পয়সা।

নিউ লাইন ক্লোথিং লিমিটেড: চলতি বছরের তৃতীয় প্রান্তিকের আর্থিক প্রতিবেদন কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২৩ পয়সা। গত বছরের এ সময়ের কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় ছিল ৬৮ পয়সা। আর (জুলাই ১৯-মার্চ, ২০) এ ৯ মাসে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ২৮ পয়সা।

গত বছরের একই সময়ের কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় ছিল ১টাকা ৪৭ পয়সা। এ সময়ে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদের মূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ২৩ টাকা ৯৪ টাকা পয়সা। যা ২০১৯ সালের ৩০ জুন ছিল ২৪ টাকা ৫৫ পয়সা।

বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড: গত (জানুয়ারী-জুন, ২০২০) সময়ের অর্ধ বার্ষিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৭৫ পয়সা। আগের বছর একই প্রান্তিকে ইপিএস ছিল ৯৩ পয়সা। ৩০ জুন,২০২০ পর্যন্ত কোম্পানির শেয়ার প্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ১৯ টাকা ৮০ পয়সা।

অগ্নি সিস্টেমস লিমিটেড: তৃতীয় প্রান্তিক (জানু’-মার্চ’২০) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.২৮ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস ছিল ০.২৬ টাকা।

এদিকে, ৯ মাসে (জুলাই’১৯-মার্চ’২০) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৭৫ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস ছিল ০.৮৩ টাকা। এছাড়া শেয়ার প্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ০.৯০ টাকা। ৩১ মার্চ ২০২০ পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয়েছে ১৪.৪৯ টাকা।        

Check Also

জিএসপি ফাইন্যান্সের ডিভিডেন্ড ঘোষণা

ডেইলি শেয়ারবাজার রিপোর্ট: সমাপ্ত অর্থবছরের (৩১ ডিসেম্বর, ২০১৯) শেয়ারহোল্ডারদের জন্য ডিভিডেন্ড (লভ্যাংশ) ঘোষণা করেছে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *